অক্টো. 262013
 

আবূল ইয়ামান (রহঃ)…… আবদুল্লাহ্ ইবন উমর (রাঃ) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমি রাসূল (সাঃ) কে দেখেছি, সফরে যখনই তাঁর ব্যস্ততার কারণ ঘটেছে, তখন তিনি মাগরিবের সালাত (নামায) বিলম্বিত করেছেন, এমন কি মাগরিব ও ইশার সালাত (নামায) একত্রে আদায় করেছেন। আবদুল্লাহ্-ইবন উমর (রাঃ) সফরের ব্যস্ততার সময় অনুরূপ করতেন। অপর এক সূ্ত্রে সালিম (রহঃ) বলেন, ইবন উমর (রাঃ) মুযদালিফায় মাগরিব ও ইশা একত্রে আদায় করতেন। সালিম (রহঃ) আরও বলেন, ইবন উমর (রাঃ) তাঁর স্ত্রী সাফীয়্যা বিন্ত আবূ উবাইদ-এর দুঃসংবাদ পেয়ে মদিনা প্রত্যাবর্তনকালে মাগরিবের সালাত (নামায) বিলম্বিত করেন। আমি তাঁকে বললাম, সালাত (নামায)-এর সময় হয়ে গেছে। তিনি বললেন, চলতে থাক। আমি আবার বললাম, সালাত (নামায)? তিনি বললেন, চলতে থাক। এমন কি (এ ভাবে) দু’ বা তিন মাইল অগ্রসর হলেন। এরপর নেমে সালাত (নামায) আদায় করলেন। পরে বললেন, আমি রাসূল (সাঃ) কে সফরের ব্যস্ততার সময় এরূপভাবে সালাত (নামায) আদায় করতে দেখেছি। আবদুল্লাহ্ (রাঃ) আরো বলেন, আমি রাসূল (সাঃ) কে দেখেছি, সফরে যখনই তাঁর ব্যস্ততার কারণ ঘটেছে, তখন তিনি মাগরিবের সালাত (নামায) (দেরী করে) আদায় করেছেন এবং তা তিন রাকা’আতই আদায় করেছেন। মাগরিবের সালাম ফিরিয়ে কিছু বিলম্ব করেই ইশার ইকামাত দেওয়া হত এবং দু’ রাকা’আত আদায় করে সালাম ফিরাতেন। কিন্তু ইশার পরে গভীর রাত না হওয়া পর্যন্ত সালাত (নামায) আদায় করতেন না।

সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ সালাতে কসর করা হাদিস নাম্বারঃ ১০৩০

 Leave a Reply

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>

(বাধ্যতামূলক)

(বাধ্যতামূলক)

আপনি যে মানুষ তা পরীক্ষা করে নিন। *