নভে. 142013
 

হযরত মূসা’দ্দাদ (রহঃ) হযরত আবদুল ওয়াহিদ (রহঃ) সূত্রে বর্নিত, যে সম্পদ ভাগ-বাটোয়ারা হয়নি তাতে শুফআ। হিশাম (রহঃ) মামর (রহঃ) থেকে হাদীস বর্ননায় মূসা’দ্দাদের অনুসরন করেছেন। আবদুর্ রাজ্জাক (রহঃ) বলেছেন, যে সম্পদ ভাগ-বাটোয়ারা হয়নি, সে সব সম্পদেই শুফআ রয়েছে। হাদীসটি আবদুর্ রাহমান ইবনু ইসহাক (রহঃ) যুহরী (রহঃ) থেকে বর্ননা করেছেন।

গ্রন্থঃ সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ ক্রয় – বিক্রয় হাদিস নাম্বারঃ ২০৭৩

নভে. 142013
 

হযরত মুহাম্মাদ ইবনু মাহবুব (রহঃ) হযরত জাবির ইবনু আবদুল্লাহ (রাঃ) সূত্রে বর্নিত, রাসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) যে সম্পত্তির ভাগ-বাটোয়ারা হয়নি, তার মধ্যে শুফআ লাভের ফায়সালা প্রদান করেছেন। তারপর যখন সীমানা নির্ধারিত হয়ে যায় এবং স্বতন্ত্র করা হয় তখন আর শুফআ এর অধিকার থাকবেনা।

গ্রন্থঃ সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ ক্রয় – বিক্রয় হাদিস নাম্বারঃ ২০৭২

নভে. 142013
 

হযরত মাহমুদ (রহঃ) হযরত জাবির (রাঃ) সূত্রে বর্নিত, যে সম্পত্তির ভাগ-বাটোয়ারা হয়নি, রাসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) তাতে শুফআ১ এর অধিকার প্রদান করেছেন। যখন সীমানা নির্ধারিত হয়ে যাবে এবং রাস্তা ভিন্ন করা হয়, তখন আর শুফআ এর অধিকার থাকবেনা। ১) যৌথ মালিকানা বা প্রতিবেশী হওয়ার কারনে জমি বিক্রয়ের ক্ষেত্রে তা লাভ করার অগ্রাধিকারকে শুফআ বলে।

গ্রন্থঃ সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ ক্রয় – বিক্রয় হাদিস নাম্বারঃ ২০৭১

অক্টো. 282013
 

হযরত মাক্কী ইবন ইবরাহীম (রঃ) হযরত আমর ইবন শারীদ (রঃ) থেকে বর্নিত, আমি হযরত সাদ ইবন আবূ ওয়াক্কাস (রাঃ) এর কাছে দাঁড়িয়ে ছিলাম, তখন মিসওয়ার ইবন মাখরামা (রাঃ) এসে তাঁর হাত আমার কাঁধে রাখেন। এমতাবস্থায় রাসূল (সাঃ) এর আযাদকৃত গোলাম আবূ রাফি (রাঃ) এসে বললেন, হে সাদ! আপনার বাড়ীতে আমার যে দুটি ঘর আছে, তা আপনি আমার থেকে খরিদ করে নিন। সাদ (রাঃ) বললেন, মহান আল্লাহ্ তা’আলার কসম, আমি সে দুটি ঘর খরিদ করবোনা। তখন মিসওয়ার (রাঃ) বললেন, মহান আল্লাহ্ তা’আলার কসম, আপনি এ দুটো অবশ্যই খরিদ করবেন। সাদ (রাঃ) বললেন, মহান আল্লাহ্ তা’আলার কসম, আমি তোমাকে কিস্তিতে চার হাজার (দিরহাম) এর অধিক দিবনা। আবূ রাফি (রাঃ) বললেন, এই ঘর দুটির বিনিময়ে আমাকে পাঁচশ দ্বীনার দেওয়ার প্রস্তাব এসেছে। আমি যদি রাসূল (সাঃ) -কে এ কথা বলতে না শুনতাম যে, প্রতিবেশী অধিক হকদার তার নৈকট্যের কারনে, তাহলে আমি এ দুটি ঘর আপনাকে চার হাজার (দিরহাম) এর বিনিময়ে কিছুতেই দিতামনা। আমাকে এ দুটি ঘরের বিনিময়ে পাঁচশ দ্বীনার দেওয়ার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল। তারপর তিনি তা তাঁকে (সাদ’ কে) দিয়ে দিলেন।

সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ শুফআ হাদিস নাম্বারঃ ২১১৫

অক্টো. 282013
 

হযরত মুসাদ্দাদ (রঃ) হযরত জাবির ইবন আবদুল্লাহ (রাঃ) থেকে বর্নিত, রাসূল (সাঃ) যে সব সম্পত্তি ভাগ-বাটোয়ারা হয়নি, তাতে শুফআ এর ফায়সালা দিয়েছেন। যখন সীমানা নির্ধারিত হয়ে যায় এবং রাস্তাও পৃথক হয়ে যায়, তখন শুফআ এর অধিকার থাকেনা। ১) বাড়ী, জমি ইত্যাদি এজমালী সম্পত্তি হতে কেউ নিজের অংশ বিক্রি করলে অপর শরীকের অথবা বাড়ী বা জমির সংলগ্ন থাকার কারনে প্রতিবেশীর উক্ত বিক্রয় মূল্যে খরিদ করার যে অগ্রাধিকার শরীয়াত প্রদান করেছে, তাকে শুফআ বলে।

সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ শুফআ হাদিস নাম্বারঃ ২১১৪