নভে. 182013
 

‘আলী ইবনু ‘আবদুল্লাহ (রহঃ) ইবনু ‘আব্বাস (রাঃ) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, মক্কা বিজয়ের দিন রাসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) বললেনঃ এ (মক্কা) শহরকে আল্লাহ সম্মানিত করেছেন, এর একটি কাঁটাও কর্তন করা যাবে না, এতে বিচরণকারী শিকারকে তাড়া করা যাবে না, এখানে মু‘আরিফ (১) ব্যতীত পড়ে থাকা কোন বস্তু কেউ তুলে নিবে না। ১ মু‘আরিফঃ পড়ে থাকা বস্তু সংগ্রহ করে মালিকদের নিকট তা পৌঁছে দেওয়ার লক্ষ্যে যে ঘোষণা করে জানিয়ে দেয়।

গ্রন্থঃ সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ হজ্ব (হাজ্জ) হাদিস নাম্বারঃ ১৪৯২

নভে. 172013
 

আবূল ওয়ালীদ (রহঃ) আবদুল্লাহ ইবনু মুগাফফাল (রাঃ) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমরা খায়বারের দুর্গ অবরোধ করেছিলাম। কোন এক ব্যাক্তি একটি থলে ফেলে দিল ; তাতে ছিল চর্বি। আমি তা নেয়ার জন্য উদ্যত হলাম। হঠাৎ তাকিয়ে দেখি যে, নাবী (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) দাঁড়িয়ে আছেন। তখন আমি তা নেয়ার ব্যাপারে লজ্জিত হয়ে পড়লাম।

গ্রন্থঃ সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ জিহাদ হাদিস নাম্বারঃ ২৯৩২

নভে. 052013
 

মুহাম্মদ (রহঃ) যায়দ ইবন খালিদ জুহানী (রাঃ) থেকে বর্ণিত। এক ব্যাক্তি রাসুলুল্লাহ (সাঃ) কে পথে পড়ে থাকা জিনিস সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করলেন। তিনি বললেন তুমি তা এক বছর পর্যন্ত প্রচার করতে থাকো, তারপর তার বাধন চিনে রাখ। তারপর তা তুমি ব্যয় কর। এরপর যদি এর মালিক এসে যায়, তবে তুমি তাকে ফিরিয়ে দাও। লোকটি আবার জিজ্ঞাসা করল: ইয়া রাসুলুল্লাহ (সাঃ)! হরিয়ে যাওয়া ছাগলের কি হুকুম? তিনি বললেন সেটা তুমি নিয়ে যাও। কারণ এটা হয়ত তোমার জন্য অথবা তোমার কোন ভাই এর অথবা চিতারাঘের। লোকটি আবার জিজ্ঞাসা করল। ইয়া রাসুলুল্লাহ (সাঃ)! আর হারানো উটের কি হুকুম? তখন রাসুলুল্লাহ (সাঃ) রেগে গেলেন। এমন কি তার গন্ডদ্বয় রক্তিমাভ হয়ে গেল। তিনি বললেনঃ তাতে তোমার কি? তাঁর সাথেই তার চলমান পা ও পানি রয়েছে এবং এ পর্যন্ত সেটি তার মালিকের নাগাল পেয়ে যাবে।

সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ আচার ব্যবহার হাদিস নাম্বারঃ ৫৬৮২

নভে. 032013
 

মূসা ইবন ইসমাঈল (রহঃ) আবূ হুরায়রা (রাঃ) থেকে বর্ণিত, নাবী (সাঃ) বলেন, বনী ইসরাঈলদের একদল লোক নিখোঁজ হয়ে গিয়েছিল। কেউ জানেনা তাদের কি হল আর আমি তাদেরকে ইদুর বলেই মনে করি। কেননা তাদের সামনে যখন উটের দুধ রাখা হয়, তারা তা পান করে না, আর তাদের সামনে ছাগলের দুধ রাখা হয় তারা তা পান করে ( আবূ হুরায়রা (রাঃ) বলেন) আমি এ হাদীসটি কা‘বের নিকট বললাম, তিনি আমাকে জিজ্ঞাসা করলেন? আপনি কি এটা নাবী (সাঃ) -কে বলতে শুনেছেন?আমি বললাম, হ্যাঁ। তারপর তিনি কয়েকবার আমাকে একথাটি জিজ্ঞাসা করলেন। তখন আমি বললাম, আমি কি তাওরাত কিতাব পড়েছি?

সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ সৃষ্টির সূচনা হাদিস নাম্বারঃ ৩০৭৩

নভে. 022013
 

আলী ইবন আব্দুল্লাহ (রহঃ) মুনবাইস-এর আযাদ কৃত গোলাম ইয়াযীদ (রাঃ) থেকে বর্ণিত যে, নাবী (সাঃ) কে হারানো বকরী সম্পর্কে জিজ্ঞেস করা হলে তিনি বললেনঃ ওটাকে ধরে নাও। কেননা, ওটা হল তোমার জন্য, না হয় তোমার (অন্য) ভাইয়ের জন্য অথবা নেকড়ের জন্য। তাঁকে আবার হারানো উট সম্পর্কে জিজ্ঞেস করা হলে তিনি রেগে গেলেন এবং তার উভয় গণ্ডদেশ রক্তিম বর্ন ধারন করল। এরপর তিনি বললেনঃ ওকে নিয়ে তোমার ভাবনা কিসের? তার সাথে (চলার জন্য) পায়ের তলায় ক্ষুর ও (পানাহারের জন্য) পেটে মশক আছে। সে পানি পান করতে থাকবে এবং বৃক্ষ-লতা খেতে থাকবে আর এর মধ্যে মালিক তার সন্ধান লাভ করবে। তাকে লুকতা (হারানো প্রাপ্তি) সমন্ধে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বলেনঃ প্রাপ্ত বস্তুর থলে ও মাথার বন্ধনটা চিনে নাও এবং এক বছর পর্যন্ত এর ঘোষণা দিতে থাক। যদি এ শনাক্তকারী (মালিক) আসে, তবে ভালো কথা, অন্যথায় এটাকে তোমার মালের সাথে মিলিয়ে নাও। সুফিয়ান বলেনঃ আমি রাবীআ ইবন আবূ আবদুর রহমানের সাথে সাক্ষাৎ কসে উল্লিখিত কথাগুলো ছাড়া কিছুই পাইনি। আমি বললামঃ হারান প্রানী সম্পর্কে মুনবাইস এর আযাদকৃত গোলাম ইয়াযীদের হাদীসটি কি যায়েদ ইবন খালিদ থেকে বর্ণিত? তিনি বললেনঃ হ্যা। ইয়াহইয়া বলেন, রাবীআ বলতেনঃ হাদীসটি মুনবাইস-এর আযাদকৃত গোলাম ইয়াযীদ-এর সূত্রে যায়েদ ইবন খালিদ থেকে বর্ণিত। সুফিয়ান বললেনঃ আমি রাবী আর সাথে সাক্ষাৎ করে এ ব্যাপারে আলোচনা করলাম।

সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ তালাক হাদিস নাম্বারঃ ৪৯১১

অক্টো. 312013
 

আবূ নুআয়ম (রহঃ) আবূ হুরায়রা (রাঃ) থেকে বর্ণিত। খুযাআ গোত্রের লোকেরা এক ব্যাক্তিকে হত্যা করল। আব্দুল্লাহ ইবন রাজা (রহঃ) আবূ হুরায়রা (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেনঃ মক্কা বিজয়ের বছর খুযাআ গোত্রের লোকেরহ জাহেলী যুগের স্বগোত্রীয় নিহত ব্যাক্তির প্রতিশোধ হিসেবে বনী লায়স গোত্রের এক ব্যাক্তিকে হত্যা করুন। তখন রাসুলুল্লাহ (সাঃ) দাড়ালেন এবং বললেনঃ আল্লাহ মক্কা থেকে হস্তীদলকে রুখেছেন এবং তাদের বিরুদ্ধে আপন রাসুল ও মুমিনদেরকে কতৃঁত্ব দান করেছেন। জেনে রেখো! মক্কা আমার পূর্বে কারো জন্য হালাল হয়নি, আর আমার পরও কারো জন্য হালাল হবে না। জেনে রেখো! অযিার ক্ষেত্রে তা দিনের কিছু সময়ের জন্য হালাল করা হয়েছে। সাবধান! তা আমার এ সময়ে এমন সম্মানিত, তার কাটা উপড়ানো যাবে না, তার বৃক্ষ কাটা যাবে না, তাতে পড়ে থাকা বস্তু মালিকের কাছে ফিরিয়ে দেয়ার উদ্দেশ্য ব্যতীত ভুলে নেওয়া যাবে না। আর ষার কাউকে হত্যা করা হয় সে দু-প্রকার দণ্ডের যে কোন একটি প্রয়োগের ইখতিয়ার লাভ করবে। হহাত রক্তপঁণ গ্রহণ করা হবে, নতুবা কিসাস নেওয়া হবে। এ সময় ইয়ামনবাসী এক ব্যাক্তি দাঁড়াল, যাকে আবূ শাহ বলা হয়। সে বলল, হে আল্লাহর রাসুল! আমাকে লিখে দিন। তখন রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বললেনঃ তোমরা আবূ শাহকে লিখে দাও। তারপর কুরাইশ গোত্রের এক ব্যাক্তি দাড়াল। আর বলল, হে আল্লাহর রাসূল (সাঃ)! ইযখির ব্যতীত। কেননা, আমরা তা আমাদের ঘরে, আমাদের কবরে ব্যবহার করি। তখন রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বললেনঃ ইযখির ব্যতীত। উবায়দুল্লাহ (রহঃ) শায়বান (রহঃ) থেকে ‘আল ফীল’ (হস্তী)-এর ব্যাপারে হারব ইবন শাদ্দাদ (রহঃ)-এর অনুসরণ করেছেন। কেউ কেউ আবূ নুআয়ম (রহঃ) থেকে ‘আল মাকতুল’ শব্দ নকল করেছেন।

গ্রন্থঃ সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ রক্তপন হাদিস নাম্বারঃ ৬৪১৪

অক্টো. 282013
 

ইসমাঈল (রহঃ) যায়দ ইব্‌ন খালিদ (রাঃ) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেনঃ একজন লোক রাসূল (সাঃ) এর নিকট এসে পড়ে থাকা জিনিস সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করল। তিনি বললেনঃ থলেটি এবং তার মুখের বন্ধনটি চিনে রাখো। তারপর এক বছর পর্যন্ত তা ঘোষণা করতে থাক। যদি তার মালিক এসে যায় তো ভালো। তা নাহলে সে ব্যাপারে তুমি যা ভাল মনে কর তা করবে। সে আবার জিজ্ঞাসা করল, হারানো বকরি কি করব? তিনি বললেন, সেটি হয় তোমার, না হয় তোমার ভাইয়ের, না হয় নেকড়ে বাঘের। সে আবার জিজ্ঞাসা করল, হারানো উট হলে করব? তিনি বললেন, তাতে তোমার প্রয়োজন কি? তার সংগে তার মশ্‌ক ও খুর রয়েছে। সে জলাশয়ে উপস্থিত হয়ে গাছ-পেলা খাবে, শেষ পর্যন্ত তার মালিক তাকে পেয়ে যাবে।

সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ পানি সিঞ্চন হাদিস নাম্বারঃ ২২১৬

অক্টো. 132013
 

সুলায়মান ইব্‌ন হার্‌ব (রহঃ) সুওয়াইদ ইব্‌ন গাফালা (রহঃ) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, সুলায়মান ইব্‌ন রবী’আ এব যায়দ ইব্‌ন সুহানের সঙ্গে আমি এক যুদ্ধে শরীক ছিলাম। আমি একটি চাবুক পেলাম। তারা উভয়ে আমাকে এটা ফেলে দিতে বললেন। আমি বললাম, না, এর মালিক এলে এটা আমি তাকে দিয়ে দিব। নতুবা আমিই এটা ব্যবহার করব। আমরা ফিরে গিয়ে হাজ্জ (হজ্জ) করলাম; এরপর যখন মদীনায় গেলাম তখন উবাই ইব্‌ন কাআব (রাঃ) কে (এ বিষয়ে) জিজ্ঞাসা করলাম। তিনি বললেন, রাসূল (সাঃ) এর যুগে আমি একটি থলে পেয়েছিলাম, এর মধ্যে একশ দিনার ছিল। আমি এটা রাসূল (সাঃ) এর নিয়ে গেলাম। রাসূল (সাঃ) বললেন, এক বছর পর্যন্ত তুমি এটার ঘোষণা দিতে থাক। কাজেই আমি এক বছর পর্যন্ত এর ঘোষণা দিলাম। এরপর আমি তাঁর কাছে এলাম। তিনি আরো এক বছর ঘোষণা দিতে বললেন। আমি আরো এক বছর ঘোষণা দিলাম। এরপর আমি আবার তাঁর কাছে এলাম। রাসূল (সাঃ) আবার এক বছর ঘোষণা দিতে বললেন। আমি আরো এক বছর ঘোষণা দিলাম। এরপর আমি চতুর্থ বার তাঁর কাছে আসলাম। রাসূল (সাঃ) বললেন, থলের ভিতরের দীনারের সংখ্যা, বাঁধন এবং থলেটি চিনে রাখ। যদি মালিক ফিরে আসে তাকে দিয়ে দাও। নতুবা তুমি নিজে তা ব্যবহার কর।

সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ পড়ে থাকা বস্তু উঠান হাদিস নাম্বারঃ ২২৭৪

অক্টো. 132013
 

কুতায়বা ইব্‌ন সাঈদ (রহঃ) যায়দ ইব্‌ন খালিদ জুহানী (রাঃ) থেকে বর্ণিত যে, এক ব্যাক্তি পড়ে থাকা জিনিস সম্পর্কে রাসূল (সাঃ) কে জিজ্ঞাসা করল। রাসূল (সাঃ) বললেনঃ এক বছর যাবত ঘোষনা দিতে থাক। এরপর জিনিসটির পাত্র ও তার বাঁধন স্মরণ রাখ এবং সেটা খরচ কর। যদি তার মালিক এসে যায় তবে তাকে দিয়ে দাও। সে জিজ্ঞাসা করল, ইয়া রাসূল (সাঃ) ‌! হারিয়ে যাওয়া বস্তু বকরী হলে কি করতে হবে? রাসূল (সাঃ) বললেনঃ তা তুমি নিয়ে নাও। কেননা, সেটা তোমার কিংবা তোমার ভাইয়ের আর তা না হলে নেকড়ে বাঘের। সে আবার বলল, ইয়া রাসূল (সাঃ)! হারানো বস্তু উট হলে কি করতে হবে? এতে রাসূল (সাঃ) রাগান্বিত হলেন এমনকি তাঁর উভয় গাল লাল হয়ে গেল অথবা রাবী বলেন, তার মুখমন্ডল লাল হয়ে গেল। তারপর তিনি বললেন, এতে তোমার কি? তার সাথে তার ক্ষুর ও মশক রয়েছে। শেষ পর্যন্ত তার মালিক তার সন্ধান পেয়ে যাবে।

সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ পড়ে থাকা বস্তু উঠান হাদিস নাম্বারঃ ২২৭৩

অক্টো. 132013
 

আবদুল্লাহ্‌ ইব্‌ন ইউসুফ (রহঃ) আবদুল্লাহ্‌ ইব্‌ন উমর (রাঃ) থেকে বর্ণিত, রাসূল (সাঃ) বলেছেনঃ অনুমতি ব্যতীত কারো পশু কেউ দোহন করবে না। তোমাদের কেউ কি এটা পছন্দ করবে যে, তার তোশাখানায় কোন লোক এসে ভান্ডার ভেঙ্গে ফেলে এবং ভান্ডারের শস্য নিয়ে যায়? তাদের পশু গুলোর স্তন তাদের খাদ্য সংরক্ষিত রাখে। কাজেই কারো পশু তার অনুমতি ব্যতীত কেউ দোহন করবে না।

সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ পড়ে থাকা বস্তু উঠান হাদিস নাম্বারঃ ২২৭২