নভে. 172013
 

আলী ইবনু আবদুল্লাহ (রহঃ) ইবনু আব্বাস (রাঃ) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, নাবী (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) রমযান মাসে সফরে বের হন এবং সিয়াম পালন করেন। যখন তিনি কাদীদ নামক স্থানে পৌছলেন তখন সিয়াম ছেড়ে দেন। সুফিয়ান (রহঃ) ইবনু আব্বাস (রাঃ) থেকে অনুরূপ হাদীস বর্ণনা করেছেন। আবূ আবদুল্লাহ (রহঃ) বলেন, এটা যুহরী (রহঃ)- এর উক্তি এবং রাসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) (রাঃ)- এর সর্বশেষ কার্যই গ্রহণযোগ্য।

গ্রন্থঃ সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ জিহাদ হাদিস নাম্বারঃ ২৭৪৯

নভে. 162013
 

ইসহাক ইবনু নাসর(রহঃ) আবূ সাঈদ খুদরী (রাঃ) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমি নাবী (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) -কে বলতে শুনেছি, যে ব্যাক্তি আল্লাহর রাস্তায় এক দিনও সিয়াম পালন করে, আল্লাহ তাঁর মুখমণ্ডলকে(অর্থাৎ তাঁকে) দোযখের আগুন থেকে সত্তর বছরের রাস্তা দূরে সরিয়ে নেন।

গ্রন্থঃ সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ জিহাদ হাদিস নাম্বারঃ ২৬৪৩

নভে. 162013
 

আদম(রহঃ) আনাস ইবনু মালিক (রাঃ) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, নাবী (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) -এর জীবঙ্কালে আবূ তালহা (রাঃ) জিহাদের কারণে সিয়াম পালন করতেন না। কিন্তু রাসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) -এর ইন্তেকালের পর ইদুল ফিতর ও ইদুল আযহা ব্যতীত তাঁকে আর কখনো সিয়াম ছেড়ে দিতে দেখিনি।

গ্রন্থঃ সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ জিহাদ হাদিস নাম্বারঃ ২৬৩২

নভে. 152013
 

‘উবায়দুল্লাহ ইবনু মূসা (রহঃ) ইবনু ‘আব্বাস (রাঃ) থেকে বর্ণিত , তিনি বলেন , আমি রাসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) কে ‘আশুরার দিনের সাওম (রোযা) র উপরে অন্য দিনের সাওম (রোযা)কে প্রাধান্য প্রদান করতে দেখি নাই এবং এ মাস অর্থাৎ রমযান মাস (এর উপর অন্য মাসের গুরুত্ব প্রদান করতেও দেখি নাই )।

গ্রন্থঃ সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ সাওম বা রোজা হাদিস নাম্বারঃ ১৮৮০

নভে. 152013
 

‘আবদুল্লাহ ইবনু ইউসুফ (রহঃ) ইবনু ‘উমর (রাঃ) থেকে বর্ণিত , তিনি বলেন, যে ব্যাক্তি একই সঙ্গে হাজ্জ (হজ্জ) ও ‘উমরা পালনের সুযোগ লাভ করল সে ‘আরাফাতের দিবস পর্যন্ত সাওম (রোযা) পালন করবে। সে যদি কুরবানী না করতে পারে এবং সাওম (রোযা)ও পালন না করে থাকে তবে মিনার দিনগুলোতে সাওম (রোযা) পালন করবে। ইবনু শিহাব (রহঃ) ‘আয়িশা (রাঃ) থেকে অনুরূপ বর্ণনা করেছেন। ইবরাহীম ইবনু সা‘দ (রহঃ) ইবনু শিহাব (রহঃ) থেকে অনুরূপ হাদীস বর্ণনা করেছেন।

গ্রন্থঃ সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ সাওম বা রোজা হাদিস নাম্বারঃ ১৮৭৩

নভে. 152013
 

মুহাম্মদ ইবনু বাশশার (রহঃ) ‘আয়িশা (রাঃ) ও ইবনু ‘উমর (রাঃ) থেকে বর্ণিত, তাঁরা উভয়ে বলেন , যাঁর নিকট কুরবানীর পশু নেই তিনি ছাড়া অন্য কারও জন্য আইয়্যামে তাশরীকে সাওম (রোযা) পালন করার অনুমতি দেওয়া হয় নাই।

গ্রন্থঃ সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ সাওম বা রোজা হাদিস নাম্বারঃ ১৮৭২

নভে. 152013
 

মুহাম্মদ ইবনুল মূসান্না (রহঃ) যিয়াদ ইবনু জুবাইর (রহঃ) থেকে বর্ণিত , তিনি বলেন , এক ব্যাক্তি এসে (‘আবদুল্লাহ) ইবনু ‘উমর (রাঃ) -কে বলল যে , এক ব্যাক্তি কোন এক দিনের সাওম (রোযা) পালন করার মানত করেছে , আমার মনে হয় সে সোমবারের কথা বলেছিল। ঘটনাক্রমে ঐ দিন ঈদের দিন পড়ে যায়। ইবনু ‘উমর (রাঃ) বললেন , আল্লাহ তা‘আলা মানত পুরা করার নির্দেশ দিয়েছেন আর নাবী (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এই (ঈদের) দিনে সাওম (রোযা) পালন করতে নিষেধ করেছেন।

গ্রন্থঃ সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ সাওম বা রোজা হাদিস নাম্বারঃ ১৮৭০

নভে. 152013
 

মূসা ইবনু ইসমা‘ঈল (রহঃ) আবূ সা‘ঈদ (রাঃ) থেকে বর্ণিত , তিনি বলেন , রাসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) ঈদুল ফিতরের দিন এবং কুরবানীর ঈদের দিন সাওম (রোযা) পালন করা থেকে , ‘সাম্মা ’ ধরনের কাপড় পরিধান করতে , এক কাপড় পরিধানরত অবস্থায় দুই হাঁটু তুলে নিতম্বের উপর বসতে (কেননা এত সতর প্রকাশ পাওয়ার আশংকা রয়েছে)এবং ফজর ও ‘আসরের পরে সালাত (নামায) আদায় করতে নিষেধ করেছেন।

গ্রন্থঃ সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ সাওম বা রোজা হাদিস নাম্বারঃ ১৮৬৮

নভে. 152013
 

‘আবদুল্লাহ ইবনু ইউসুফ (রহঃ) বনূ আযহারের আযাদকৃত গোলাম আবূ ‘উবায়দ (রহঃ) থেকে বর্ণিত , তিনি বলেন , আমি একবার ঈদে ‘উমর ইবনুল খাত্তাব (রাঃ) -এর সঙ্গে ছিলাম , তখন তিনি বললেন , রাসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এই দুই দিনে সাওম (রোযা) পালন করতে নিষেধ করেছেন। (ঈদুল ফিতরের দিন)যে দিন তোমরা তোমাদের সাওম (রোযা) ছেড়ে দাও। আরেক দিন , যেদিন তোমরা তোমাদের কুরবানীর গোশত খাও। আবূ ‘আবদুল্লাহ (রহঃ) বলেন , ইবনু ‘উয়ায়না (রহঃ) বলেন , যিনি ইবনু আযহারের মাওলা বলে উল্লেখ করেছেন , তিনি ঠিক বর্ণনা করেছেন ; আর যিনি ‘আব্দুর রহমান ইবনু ‘আওফ (রাঃ) – এর মাওলা বলেছেন , তিনিও ঠিক বর্ণনা করেছেন।

গ্রন্থঃ সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ সাওম বা রোজা হাদিস নাম্বারঃ ১৮৬৭

নভে. 152013
 

ইয়াহইয়া ইবনু সুলায়মান (রহঃ) মায়মূনা (রাঃ) থেকে বর্ণিত যে, কিছু সংখ্যক লোক ‘আরাফাতের দিনে রাসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এর সাওম (রোযা) পালন সম্পর্কে সন্দেহ প্রকাশ করলে তিনি স্বল্প পরিমান দুধ রাসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) – এর নিকট পাঠিয়ে দিলে তিনি তা পান করলেন ও লোকেরা তা প্রত্যক্ষ করছিল। তখন তিনি (‘আরাফাতে)আবস্থান স্থলে ওকূফ করছিলেন।

গ্রন্থঃ সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ সাওম বা রোজা হাদিস নাম্বারঃ ১৮৬৬