নভে. 142013
 

হযরত ইবনু নুমাইর (রহঃ) হযরত জাবির (রাঃ) সূত্রে বর্নিত, রাসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) মুদাব্বার (১) গোলাম বিক্রি করেছেন। ১) আমার মৃত্যুর পরে তুমি আযাদ, মালিক যদি দাস-দাসীকে এরুপ বলে তবে তাকে মুদাব্বার বলা হয়।

গ্রন্থঃ সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ ক্রয় – বিক্রয় হাদিস নাম্বারঃ ২০৮৯

নভে. 142013
 

হযরত সুলাইমান ইবনু হারব (রহঃ) হযরত আনাস (রাঃ) সূত্রে বর্নিত, হযরত সাফিয়্যা (রাঃ) বন্দীদের অন্তর্ভুক্ত ছিলেন। তিনি দিহয়া কালবী (রাঃ) এর ভাগে পড়েন, এর পরে তিনি রাসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এর অধীনে এসে যান।

গ্রন্থঃ সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ ক্রয় – বিক্রয় হাদিস নাম্বারঃ ২০৮৭

নভে. 102013
 

ইবন নুমায়র (রহঃ) জাবির (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেনঃ নাবী (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) -এর কাছে সংবাদ পৌছল যে, তাঁর সাহাবীদের একজন তার গোলামকে মৃত্যুর পরে কার্যকর হবে এই শর্তে আযাদ করলেন। অথচ তার এ ছাড়া আর কোন মাল ছিল না। নাবী (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) সে গোলমটিকে আটশ- দিরহামের বিনিময়ে বিক্রি করে দেন এবং প্রাপ্তমুল্য তার নিকট পাঠিয়ে দেন।

সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ আহকাম হাদিস নাম্বারঃ ৬৬৯৬

নভে. 082013
 

আবদুল্লাহ ইবন মুহাম্মদ (রহঃ) আমর ইবন মায়মুন (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, নাবী (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) বলেছেনঃ যে ব্যাক্তি (এ কালেমাগুলি) দশবার পরবে সে ঐ ব্যাক্তির সমান হয়ে যাবে, যে ব্যাক্তি ইসমাঈল (আঃ) এর বংশ থেকে একটা গোলাম আযাদ করে দিয়েছে। আবূ আইউব আনসারী (রাঃ) থেকেও বর্ণিত আছে যে, রাসুলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এ হাদিসটা তার কাছেও বলেছেন।

গ্রন্থঃ সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ দু’আ হাদিস নাম্বারঃ ৫৯৬২

নভে. 082013
 

ইয়াহইয়া ইবন ইউসুফ (রহঃ) আবূ হুরায়রা (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেনঃ নাবী (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) বলেছেনঃ দীনার, দিরহাম, রেশমী চাদর (শাল), পশমী কাপড়ের (চাদর) গোলামরা ধবংস হোক। যাদের এসব দেয়া হলে সন্তুষ্ট থাকে আর দেয়া না হলে অন্তুষ্ট হয়।

সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ কোমল হওয়া হাদিস নাম্বারঃ ৫৯৯২

নভে. 062013
 

মুহাম্মদ ইবন কাসীর (রহঃ) আবূ মুসা আশআরী (রাঃ) থেকে বর্নিত যে নাবী (সাঃ) বলেছেনঃ তোমরা ক্ষুদার্থকে আহার করাও, রোগীর পরিচর্যা করো এবং বন্দীকে মুক্ত করো। সুফিয়ান বলেছেনঃ ‘অলআনি’ অর্থঃ বন্দী।

সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ আহার সংক্রান্ত হাদিস নাম্বারঃ ৪৯৮২

নভে. 052013
 

আবূল ইয়ামান (রহঃ) হাকীম ইবন হিযাম (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি একবার আরয করলেনঃ ইয়া রাসুলুল্লাহ (সাঃ)! আমি জাহিলী অবস্থায় অনেক সাওয়ারের কাজ করেছি। যেমন আত্মীয়তার হক আদায়, গোলাম আযাদ এবং দান-খয়রাত, এসব কাজে কি আমি কোন সাওসাব পাব? হাকীম (রাঃ) বলেন, তখন রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বললেনঃ পুর্বের এসব নেকীর কাজের দরুনিতো তুমি ইসলাম গ্রহণ করতে পেরেছ। ইমাম বুখারী (রহঃ) অন্যত্র আবূল ইয়ামান সূত্রে (আতাহান্নাছুর স্থলে) আতাহান্নাতু বর্ণনা করেছেন। (উভয় শব্দের অর্থ একই)! মা-মার, সালিহ ও ইবন মুসা ব্বিও আতাহান্নাছু রিওয়াত করেছেন। ইবন ইসহাক (রহঃ) বলেন, তাহান্নুছ অর্থ নেক কাজ করা। ইবন শিহাব তার পিতা সুত্রে অনুরুপ বর্ণনা করেছেন।

সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ আচার ব্যবহার হাদিস নাম্বারঃ ৫৫৬৬

নভে. 022013
 

কুতায়বা ইবন সাঈদ (রহঃ) ইবন আব্বাস (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেনঃ বারীরার স্বামী কালো গোলাম ছিল। তার নাম মুনাস। সে অমুক গোলের গোলাম ছিল। আমি যেন এখনো দেখতে পাচ্ছি সে মদিনার অলিতে গলিতে বারীরার পিছু পিছু ঘুরছে।

সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ তালাক হাদিস নাম্বারঃ ৪৯০২

নভে. 022013
 

আবদুল আলা ইবন হাম্মাদ (রহঃ) ইবন আব্বাস (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেনঃ অমুক গোত্রের গোলাম এই মুগীস অর্থাৎ বারীরার স্বামী; আমি যেন তাকে এখনও মদিনার অলিতে গলিতে ক্রন্দনরত অবস্থায় বারীরার পিছু পিছু ঘুরতে দেখতে পাচ্ছি।

সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ তালাক হাদিস নাম্বারঃ ৪৯০১

নভে. 022013
 

আবূল ওয়ালীদ (রহঃ) ইবন আব্বাস (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, আমি তাকে অর্থাৎ বারীরার স্বামীকে ক্রীতদাস অবস্থায় দেখেছি।

সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ তালাক হাদিস নাম্বারঃ ৪৯০০