নভে. 152013
 

‘উমর ইবনু হাফস ইবনু গিয়াস (রহঃ) আবূ হুরায়রা (রাঃ) থেকে বর্ণিত , তিনি বলেন , আমি নাবী (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) কে বলতে শুনেছি যে , তোমাদের কউ যেন শুধু জুমু‘আর দিনে সাওম (রোযা) পালন না করে কিন্তু তার আগে একদিন বা পরের দিন (যদি পালন করে তবে জুমু‘আর দিনে পালন করা যায়)

গ্রন্থঃ সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ সাওম বা রোজা হাদিস নাম্বারঃ ১৮৬২

নভে. 152013
 

আবূ ‘আসিম (রহঃ) মুহাম্মদ ইবনু ‘আব্বাদ (রহঃ) থেকে বর্ণিত , তিনি বলেন , আমি জাবির ইবনু ‘আবদুল্লাহ (রাঃ) কে জিজ্ঞাসা করলাম যে , নাবী (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) কি জুমু‘আর দিনে (নফল)সাওম (রোযা) পালন করতে নিষেধ করেছেন? উত্তরে তিনি বললেন , হাঁ। আবূ ‘আসিম (রহঃ) ব্যতীত অন্যেরা অতিরিক্ত বর্ণনা করেছেন যে , পৃথকভাবে জুমু‘আর দিনের সাওম (রোযা) পালন (-কে নিষেধ করেছেন )।

গ্রন্থঃ সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ সাওম বা রোজা হাদিস নাম্বারঃ ১৮৬১

নভে. 132013
 

হযরত খাল্লাদ ইবনু ইয়াহইয়া (রহঃ) হযরত জাবির ইবনু আবদুল্লাহ (রাঃ) থেকে বর্নিত, একজন আনসারী মহিলা রাসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) কে বললেন, ইয়া রাসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) , আমি কি আপনার জন্য এমন একটি জিনিস তৈরী করে দিবনা, যার উপর আপনি উপবেশন করবেন? কেননা, আমার একজন সূত্রধর গোলাম আছে। তিনি বললেন, যদি তুমি ইচ্ছা কর। বর্ননাকারী বলেন, তারপর সে মহিলা রাসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এর জন্য মিম্বর বানিয়ে দিলেন। যখন জুম’আর দিন হলো, রাসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) সেই মিম্বরের উপরে বসলেন। সে সময় যে খেঁজুর গাছের কান্ডের উপর ভর দিয়ে তিনি খুতবা দিতেন, সেটি এমনভাবে চিৎকার করে উঠল, যেন তা ফেটে পড়বে। রাসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) নেমে এসে তাকে নিজের সঙ্গে জড়িয়ে ধরলেন। তখন সেটি ফোঁপাতে লাগল, যেমন ছোট শিশুকে চুপ করানোর সময় ফোঁপায়। অবশেষে তা স্থির হয়ে গেল। (রাবী বলেন) খেঁজুর কান্ডটি যে যিকির-নসীহত শুনত, তা হারানোর কারনে কেঁদেছিল।

গ্রন্থঃ সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ ক্রয় – বিক্রয় হাদিস নাম্বারঃ ১৯৬৫

নভে. 102013
 

আবূল ইয়ামান (রহঃ) সাইব ইবন ইয়াযীদ (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেনঃ আমি উসমান ইবন আফফান (রাঃ)-কে রাসুলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এর মিম্বরে দাঁড়িয়ে খুতবা দিতে শুনেছি।

সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ কুরআন ও সুন্নাহকে দৃঢ়ভাবে ধারন হাদিস নাম্বারঃ ৬৮৩৮

নভে. 102013
 

ইসহাক (রহঃ) ইবন উমর থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, আমি উমর (রাঃ) কে রাসুলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এর মিম্বরে দাড়িয়ে (খুতবা দিতে) শুনেছি।

সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ কুরআন ও সুন্নাহকে দৃঢ়ভাবে ধারন হাদিস নাম্বারঃ ৬৮৩৭

নভে. 092013
 

মুহাম্মদ ইবন কাসীর (রহঃ) সাহল ইবন স্বাদ (রাঃ) থেকে বর্নিত। তিনি বলেন, আমরা জুমআর সালাত (নামায)-এর পরেই কায়লুলা করতাম এবং দূপূরের খাবার খেতাম।

সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ অনুমতি চাওয়া হাদিস নাম্বারঃ ৫৮৪৪

নভে. 082013
 

মূসাদ্দাদ (রহঃ) আবূ হুরায়রা (রাঃ) বর্ণনা করেন, আবূল কাসিম বলেন, জুমু আর দিনে এমন একটি মুহর্ত আছে যদি সে মুহর্তটিতে কোন মুসলমান দাঁড়িয়ে সালাত (নামায) আদায় করে আল্লাহর নিকট কোন কল্যাণের জন্য দুআ করে, তবে তা আল্লাহ তাকে দান করবেন। তিনি এ হাদীস বর্ণনার সময় আপন হাত দিয়ে ইশারা করেন (ইশারাতে) আমরা বুঝলাম যে, তিনি মুহর্তটির সংক্ষিপ্ততার দিকে ইংগিত করেছেন।

গ্রন্থঃ সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ দু’আ হাদিস নাম্বারঃ ৫৯৫৮

নভে. 032013
 

আহমদ ইবন ইউনুস (রাঃ) আবূ হুরায়রা (রাঃ) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, নাবী (সাঃ) বলেছেন, ‘যখন জুমুআর দিন হয় তখন মসজিদের প্রতিটি দরজায় ফিরিশতা এসে দাঁড়িয়ে যায় এবং যে ব্যাক্তি প্রথম মসজিদে এসে প্রবেশ করে, তার নাম লিখে নেয়। তারপর পরবর্তীদের পর্যায়ক্রমে নাম। ইমাম যখন (মিম্বারে) বসে পড়ের তখন তারা এসব লিখিত পুস্তিকা বন্ধ করে দেন এবং তারা মসজিদে এসে জিকর (খুতবা) শুনতে থাকেন। ’

সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ সৃষ্টির সূচনা হাদিস নাম্বারঃ ২০৮৪

অক্টো. 292013
 

আলী ইবন আবদুল্লাহ (রঃ) আবূ সাঈদ খুদরী (রাঃ) থেকে বর্ণিত, নাবী (সাঃ) বলেছেন, প্রত্যেক প্রাপ্তবয়স্কের উপর জুমু’আ দিবসের গোসল কর্তব্য।

সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ শাহাদাত হাদিস নাম্বারঃ ২৪৮৯

অক্টো. 272013
 

আদাম (রহঃ) শাবী (রহঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি আলী (রাঃ) থেকে বর্ণনা করেন যে, আলী (রাঃ) জুমআর দিন জনৈকা মহিলাকে যখন রজম করেন তখন বলেনঃ আমি তাকে রাসুলুল্লাহ (সাঃ) -এর সুন্নাত অমূযায়ী রজম করলাম।

সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ কাফের ও ধর্মত্যাগী হাদিস নাম্বারঃ ৬৩৫৬