নভে. 062013
 

আলী ইবন আব্দুল্লাহ (রহঃ) আনাস ইবন মালিক (রাঃ) থেকে বর্ণিত। একবার নাবী (সাঃ) -এর সঙ্গে তিনি ও আবূ তালহা (রাঃ) (মদিনায়) আসছিলেন। তখন নাবী (সাঃ) এর সঙ্গে সাফিয়্যা (রাঃ) তার উটের পেছনে বসাছিলেন। পথে এক জায়গায় উটের পা পিছলে যায় এবং নাবী (সাঃ) ও তার স্ত্রী পড়ে যান। তখন আবূ তালহা (রাঃ) ও তার উট থেকে লাফ দিয়ে নামলেন এবং নাবী (সাঃ) -এর কাছে গিয়ে জিজ্ঞাসা করলেন ইয়া নাবী (সাঃ) আল্লাহ! আপনার কি কোন আঘাত লেগেছে? আল্লাহ আমাকে আপনার প্রতি কুরবান করুন। তিনি বললেনঃ না। তবে স্ত্রী লোকটির খবর নাও। তখন আবূ তালহা (রাঃ) তার কাপড় দিয়ে চেহারা ঢেকে তার দিকে অগ্রসর হলেন এবং তার উপরও একখানা কাপড় ফেলে দিলেন। তখন স্ত্রীলোকটি উঠে দাড়ালেন। এরপর আবূ তালহা (রাঃ) তাদের সাওদাটি উটের উপর কসে বেধে দিলেন। তারা উভয়ে সাওয়ার হলেন এবং সবাই আবার রওয়ানা হলেন। অবশেষে যে যখন তারা মদিনার নিকটে পৌছলেন, তখন নাবী (সাঃ) বলতে লাগলেনঃ “আমরা , তাওবাকারী, ইবদতকারী এবং একমাত্র স্বীয় প্রতিপালকের প্রশংসাকারী। , তিনি মদিনায় প্রবেশ করা পর্যন্ত একথাগুলো বলছিলেন।

সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ আচার ব্যবহার হাদিস নাম্বারঃ ৫৭৫২

নভে. 052013
 

মুসা ইবন ইসমাঈস (রহঃ) আবূ বাকরা (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেনঃ এক ব্যাক্তি নাবী (সাঃ) -এর সামনে অনেক জনের প্রশংসা করলো। তিনি বললেনঃ ওয়াইলাকা (তোমার অনিষ্ট হোক) তুমি তো তোমার ভাই এর গর্দান কেটে দিয়েছ। তিনি এ কথাটি তিনবার বললেনঃ তিনি আরও বললেন: যদি তোমাদের কাউকে কারেই প্রশংসা করতেই হয়। আর সে তার অবস্থা সম্পর্কে অবহিত থাকে, তবে শুধূ এতটুকু বসবে যে, আমি এ ব্যাক্তি সম্পর্কেই এরুপ ধারনা পোষণ করি। প্রকৃত হিসাব নিকাশের মালিক একমাত্র আল্লাহ। আর আমি নিশ্চিতভাবে আল্লাহর সামনে কারো পবিত্রতা বর্ণনা করছি না।

সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ আচার ব্যবহার হাদিস নাম্বারঃ ৫৭৩১

নভে. 052013
 

আদম (রহঃ) আবূ বাকরা (রাঃ) থেকে বর্ণিত যে, নাবী (সাঃ) -এর সামনে এক ব্যাক্তির আলোচনা আসল। তখন একজন তার খুব প্রশাংসা করলো। নাবী (সাঃ) বললেনঃ আফসোস তোমার প্রতি! তুমিতো তোমার সাথীর গলা কেটে ফেললে। এ কথাটি তিনি কয়েক বার বললেন। (তারপর তিনি বললেনঃ) যদি তোমাদের কারো প্রশংসা করতেই হয়, তবে সে যেন বলে, আমি তার সম্পর্কে এমন, এমন ধারণা করি, যদি তার এরুপ হওয়ার কাথা মনে করা হয়। তার প্রকৃত হিসাব গ্রহনকারীতো হলেন আল্লাহ আর আল্লাহর মূকাবিলায় কেউ কারো পবিত্রতা বর্ণনা করবে না।

সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ আচার ব্যবহার হাদিস নাম্বারঃ ৫৬৩৫

নভে. 052013
 

মুহাম্মদ ইবন সাব্বাহ (রহঃ) আবূ মুসা (রাঃ) থেকে বর্নিত। নাবী (সাঃ) একজনকে আরেক জনের প্রাশংসা করতে শুনলেন এবং সে তার প্রসংসায় অতিরঞ্জন করছিল। তখন তিনি বললেনঃ তোমরা তো লোকটিকে মেরে ফেললে অথবা বললেনঃ লোকটির মেরুদণ্ড ভেঙ্গে দিলে।

সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ আচার ব্যবহার হাদিস নাম্বারঃ ৫৬৩৪

অক্টো. 292013
 

মুহাম্মদ ইবন সাব্বাহ (রঃ) আবূ মূসা (রাঃ) থেকে বর্ণিত, নাবী (সাঃ) এক ব্যাক্তি অপর এক ব্যাক্তির প্রশংসা করতে শুনে বললেন, তোমরা তাকে ধ্বংস করে দিলে কিংবা (রাবীর সন্দেহ) বলেছেন, তোমরা লোকটির মেরুদন্ড ভেংগে ফেললে।

সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ শাহাদাত হাদিস নাম্বারঃ ২৪৮৭

অক্টো. 292013
 

মুহাম্মদ ইবন সালাম (রঃ) আবূ বকর (রাঃ) থেকে বর্ণিত তিনি বলেন, নাবী (সাঃ) এর সামনে এক ব্যাক্তি অপর এক ব্যাক্তির প্রশংসা করল। তখন তিনি (রাসূল (সাঃ) সাঃ) বললেন, তোমার জন্য আফসোস! তুমি তো তোমার সাথীর গর্দান কেটে ফেললে, তুমি তো তোমার সাথীর গর্দান কেটে ফেললে। তিনি একথা কায়েকবার বললেন, এরপর তিনি বললেন, তোমাদের কেউ যদি তার (মুসলমান) ভাইয়ের প্রশংসা করতেই চায় তাহলে তার (এভাবে) বলা উচিত, অমুককে আমি এরূপ মনে করি, তবে আল্লাহই তার সম্পর্কে অধিক জানেন। আর আল্লাহর প্রতি সোপর্দ না করে আমি কারো সাফাই পেশ করি না। তার সম্পর্কে ভালো কিছু জানা থাকলে বলবে, আমি তাকে এরূপ এরূপ মনে করি।

সহীহ বুখারি অধ্যায়ঃ শাহাদাত হাদিস নাম্বারঃ ২৪৮৬